আট কবর স্মৃতি কমপ্লেক্স

আট কবর স্মৃতি কমপ্লেক্স

Khulna Chuadanga

0 Reviews

Overview

১৯৯৮ সালে ০.৬৬ একর জমিতে আট কবর কমপ্লেক্স তৈরি করা হয়। আট কবর কমপ্লেক্স মুক্তিযোদ্ধাদের সমাধি ছাড়াও আরো আছে গ্রন্থাগার, মুক্তমঞ্চ ও একটি দোতলা ভবন। দোতলা ভবনের দেয়াল জুড়ে প্রায় ২০০ টি আলোকচিত্রের মাধ্যমে বাংলাদেশের স্বাধীনতা আন্দোলনের ধারাবাহিক ইতিহাস ফুটিয়ে তোলা হয়েছে। আর মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে গবেষণা করতে চাইলে যেকেউ এখানে থাকার আবাসিক সুবিধাও নিতে পারবেন।


চুয়াডাঙ্গা থেকে আট কবর সমাধিস্থলের দূরত্ব প্রায় ৩০ কিলোমিটার। ১৯৭১ সালের ৩ আগস্ট কমান্ডার হাফিজুর রহমান জোয়ার্দ্দারের নেতৃত্বে একদল মুক্তিযোদ্ধা চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদার জয়পুর শেল্টার ক্যাম্পে অবস্থান নেয়। সকালবেলা পাকিস্তান মুসলিম লীগের দালাল কুবাদ খাঁ তার পরিকল্পনা অনুযায়ী মুক্তিযোদ্ধাদের ক্যাম্পে খবর পাঠায় রাজাকারেরা নাটুদা, জগন্নাথপুর এবং এর আশেপাশের জমির পাকা ধান কেটে নিয়ে গেছে। এমন খবর শুনে ৫ আগস্ট কমান্ডার হাসানের নেতৃত্বে কয়েকজন মুক্তিযোদ্ধা প্রায় দুই কিলোমিটার দূরে বাগোয়ান গ্রামে ছুটে যান। সেখানে আগে থেকে সুযোগের অপেক্ষায় থাকা নাটুদা ক্যাম্পের পাকিস্তানি সৈন্যরা মুক্তিযোদ্ধাদের চতুর্দিক থেকে ঘিরে ফেলে। তখন মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে পাকিস্তানি সৈন্যদের সম্মুখ যুদ্ধে আট জন বীর মুক্তিযোদ্ধা শাহাদাৎ বরণ করেন। এরপর পাক বাহিনীর নির্দেশের রাজাকারেরা মুক্তিযোদ্ধাদের মৃতদেহগুলো দুইটি গর্তে কবর দিয়ে দেয়। মুক্তিযুদ্ধের এই সমাধিস্থল স্থানীয় মানুষের কাছে আট কবর হিসেবে পরিচিত।

Instruction

কিভাবে যাবেন  ঃ  ঢাকা গাবতলী এবং সায়েদাবাদ বাস টার্মিনাল হতে হতে চুয়াডাঙ্গার দূরত্ব ২৫০ কিলোমিটার। ঢাকা থেকে বাস এবং ট্রেনে চুয়াডাঙ্গা জেলায় যাওয়ার সুযোগ রয়েছে।আট কবর যেতে হলে প্রথমে চুয়াডাঙ্গা শহরে আসতে হবে। চুয়াডাঙ্গা শহর হতে সরারসরি বাস বা লেগুনায় চড়ে আট কবর যাওয়া যায়।


কোথায় থাকবেন ঃ চুয়াডাঙ্গায় অবস্থিত  আবাসিক হোটেলে রাত্রি যাপন করতে পারবেন .উল্লেখযোগ্য আবাসিক হোটেলের মধ্যে রয়েছে – হোটেল অবকাশ (0761-62288), হোটেল আল মেরাজ (0761-62383), অন্তুরাজ আবাসিক হোটেল (0761-62702), হোটেল প্রিন্স (0761-62378)।